প্রচ্ছদ

বাংলা বর্ষবরণে সিলেটে নানা আয়োজন

প্রকাশিত হয়েছে : ১২:৩৩:৪০,অপরাহ্ন ১৪ এপ্রিল ২০১৮ | সংবাদটি ৭১ বার পঠিত

সিলেট নিউজ ওয়ার্ল্ড ডটকম

আজ শনিবার পহেলা বৈশাখ। জীর্ণ-পুরাতনকে পেছনে ফেলে সম্ভাবনার নতুন বছরে প্রবেশ করবে বাঙালি জাতি। পহেলা বৈশাখে বর্ণিল উৎসবে মাতবে দেশ। সকালে ভোরের প্রথম আলো রাঙিয়ে দেবে নতুন স্বপ্ন, প্রত্যাশা আর সম্ভাবনাকে। দেশ জুড়ে থাকবে বর্ষবরণের নানা আয়োজন।

সারাদেশের মতো আজ বাঙালির প্রাণের উৎসবে মাতবে দুটি পাতা একটি কুঁড়ির দেশ সিলেট। বাসন্তী শাড়ি কিংবা শ্বেতশুভ্র পাঞ্জাবি, পান্তা-ইলিশ, মঙ্গলশোভাযাত্রায় বছরের প্রথম দিন পুরাতন জরাজীর্ণতা, সংকীর্ণতা কিংবা কুপমন্ডুকতা পেছনে ফেলে সামনে এগিয়ে যেতে প্রস্তুত সিলেট।

বাংলার শ্বাশত মিলনোৎসবে শ্রীহট্ট সংস্কৃত কলেজ প্রাঙ্গণে ‘বর্ষবরণ উৎসব ১৪২৫’ আয়োজন করেছে পহেলা রবীন্দ্রসংগীত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আনন্দলোক।
ঢাকের বাদ্য দিয়ে মঙ্গল কামনায় শুরু হওয়া এই আয়োজনে আনন্দলোকের কর্ণধার রানা কুমার সিনহার সাথে শতাধিক শিক্ষার্থী পরিবেশন করবে বর্ষবরনের মনোমুগ্ধকর সাংস্কৃতিক পরিবেশনা।
আনন্দলোকের ‘বর্ষবরণ উৎসব ১৪২৫’ উদ্বোধন করবেন বিশিষ্ট লোকসংগীত শিল্পী একুশে পদকপ্রাপ্ত শিল্পী সুষমা দাশ। উৎসবে আমন্ত্রিত অতিথি শিল্পী হিসেবে অংশ নেবেন কলকাতা ভারতের বিশিষ্ট রবীন্দ্রসংগীত শিল্পী পুবালী দেবনাথ ও বাচিক শিল্পী দেবেশ ঠাকুর। এছাড়াও অংশ নেবে নৃত্যশৈলী, রবীন্দ্রসংগীত শিল্পী সংস্থা, সিলেট; গীতবিতান বাংলাদেশ, নজরুল সংগীত পরিষদ, সিলেট, দ্বৈতস্বর, বাংলাদেশ উদীচী শিল্পী গোষ্ঠী, সিলেট; তারুণ্য, রূপসী বাংলা, সিলেট আর্ট এন্ড কালচার ইনস্টিটিউট, সুরাঞ্জলি, সংগীত মুকুল। বছরের প্রথম সুর্যোদয়ের সাথে শুরু হওয়া এ উৎসব চলবে দুপুর দেড়টা পর্যন্ত।

পহেলা বৈশাখ মানেই সিলেটের সর্বোচ্চ বিদ্যাপিঠ শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশাল ক্যাম্পাসে হাজারো আয়োজন। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারী কিংবা সাংস্কৃতিক সংগঠক কেউই নেই উৎসবের বাইরে। সিলেটের সবচেয়ে বড় আয়োজন এই ক্যাম্পাসে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যান্টিন থেকে শুরু করে ক্যাফেটেরিয়া, ফুডকোর্ট কিংবা টং, শহীদ মিনার থেকে শুরু করে বিশ্ববিদ্যালয় সেন্টার কিংবা গোলচত্বর- বৈশাখের উন্মাদনা সবখানে।

ইদিমধ্যে নতুনরূপে সেজেছে বিভিন্ন বিভাগ, জায়গায় জায়গায় বসানো হয়েছে বৈশাখী স্টল। এ যেন এক প্রাণের মেলা, নিজেদের সংস্কৃতির শেকড়ে ফিরে যাওয়া। চায়ের কাপে কিংবা আড্ডায় শুধুই পহেলা বৈশাখ।
পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগ ও সাংস্কৃতিক সংগঠনসমূহ। বর্ষবরণের মূল অনুষঙ্গ মঙ্গল শোভাযাত্রা দিয়ে শুরু উৎসবের। সকাল সাড়ে ৯ টায় শুরু হওয়া মঙ্গল শোভাযাত্রায় বরাবরের মতোই রয়েছে বিভিন্ন প্রাণীর ভাস্কর্য,সড়ক আল্পনা, পুতুলনাচ, বায়োস্কোপসহ অন্যান্য সামগ্রী।

বৈশাখী শোভাযাত্রা ছাড়াও চমক হিসেবে রয়েছে পুতুল নাচ এবং দিনব্যাপী বায়োস্কোপ প্রদর্শনী। এছাড়া দিনব্যাপী বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন সংগঠনের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, বাউলগান, মোড়গ লড়াই, সাপখেলাসহ বিভিন্ন বিভাগের আলাদা আলাদভাবে বর্ষবরণ অনুষ্ঠান আয়োজিত হবে। বিশাল এই আয়োজন চলবে বিকেল সাড়ে চারটা পর্যন্ত।

প্রতি বছরের মত এবারও দিনব্যাপী বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে সাংস্কৃতির সংগঠন শ্রুতি। শনিবার সকাল ৭ টায় নগরীর সুবিদবাজারস্থ ব্লু-বার্ড স্কুল এন্ড কলেজে শত কণ্ঠে বর্ষবরণের গানের মাধ্যমে তাদের বর্ষবরণের অনুষ্ঠানমালা শুরু হবে। দিনব্যাপী কর্মসূচির মধ্যে মাঙ্গলিক উদ্বোধন, গান, আবৃত্তি, নৃত্য, পিঠা উৎসবসহ বিভিন্ন আয়োজন থাকবে। এছাড়া উদীচী, আনন্দলোকসহ ২৮টি সাংস্কৃতিক সংগঠনের পরিবেশনাও রয়েছে তাদের অনুষ্ঠানে। বিকাল ৫টা পর্যন্ত চলবে তাদের অনুষ্ঠানমালা।

নতুন বছরকে স্বাগত জানাতে সিলেট জেলা শিল্পকলা একাডেমির উদ্যোগে অনুষ্ঠান আয়োজনের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। বেলা দেড়টা থেকে বিকেল ৫টার পর্যন্ত পূর্ব শাহী ঈদগাহস্থ শিল্পকলা একাডেমি প্রাঙ্গণে ‘বর্ষবরণ উৎসব ১৪২৫’ অনুষ্ঠিত হবে। শিল্পকলার আয়োজনে রয়েছে বৈশাখের গান, লোকসংগীত, কাঠি নৃত্য, ঝুমুর নৃত্য, লোকনৃত্য, সম্মিলিত সংগীত, বৃন্দ আবৃত্তি, ধামাইল, একক ও দলীয় সংগীত এবং বাউলগান।



দেশ-বিদেশের পাঠক

আর্কাইভ

এপ্রিল ২০১৮
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« মার্চ    
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০