প্রচ্ছদ

শাকিরার নাচের রহস্য

সিলেট নিউজ ওয়ার্ল্ড ডটকম

শাকিরা ভক্তদের দাবি- যখন নাচে শাকিরা, চেয়ে দেখে বাকিরা। যদিও নৃত্যশিল্পী হিসেবে শাকিরা বিশ্বে পরিচিত নন। তিনি গায়িকা হিসেবেই সমাদৃত। কিন্তু তার গান থেকে বিশেষ করে স্টেজ পার্ফমেন্সে যদি নাচ বাদ দেয়া হয় তাহলে ভক্তরা অখুশি থেকে যান। গাইবেন, গানের তালে নাচবেন, নাচাবেন এই হলো শাকিরা।

পপ তারকা শাকিরা নাকি চার বছর বয়স থেকেই গান গাইতে শুরু করেন। যা মনে আসত ছন্দ মিলিয়ে লিখেও ফেলতেন। সাত বছর বয়স থেকে শাকিরা কবিতা লিখতে শুরু করেন। এজন্য তার প্রিয় ছিল বাবার টাইপ রাইটার। শাকিরা যখন খুব ছোট তখন তার বাবা তাকে একটি রেস্তোরাঁতে নিয়ে যান। শাকিরা সেখানে দেখেছিলেন, ট্র্যাডিশনাল অ্যারাবিক মিউজিকের সঙ্গে বেলি ড্যান্স। সেদিন নাচ দেখে ছোট্ট শাকিরা খুব অবাক হয়ে গিয়েছিলেন। এই নাচ তার এতটাই ভালো লেগে গিয়েছিল যে, বাড়িতে এসে টেবিলের ওপর দাঁড়িয়ে নিজে নিজেই অনুশীলন করতেন।

একটু বড় হলে স্কুলের গানের দলে শাকিরা নাম দেন। কিন্তু টিচার তার নাম কেটে দিয়েছিলেন। কারণ শাকিরার গলার স্বর নাকি ভারি মোটা এবং চড়া। তাতে অবশ্য শাকিরা মোটেই দুঃখ পাননি। তিনি তখন অভিনব একটা উপায় বের করলেন। ক্লাস শেষে হলে তিনি বন্ধুদের আলাদা ডেকে নিয়ে বেলি ড্যান্স দেখাতে শুরু করলেন, সেই সঙ্গে শোনাতেন দুচারটি গান। বলাবাহুল্য বন্ধুরা তার নাচ দেখার আশায় গান শুনত। এভাবে স্কুলে তার নাম হয়ে গেল ‘দ্য বেলি ড্যান্সার গার্ল’।

নিজের জনপ্রিয়তা দেখে সেই বয়সেই শাকিরা ঠিক করে ফেলেন, তিনি গানের পাশাপাশি নাচটাও করবেন। এবং কখনও নাচ ছাড়া গান করবেন না।

১৯৯০ সালে মাত্র ১৩ বছর বয়সে শাকিরা ছেলেবেলায় লেখা গান নিয়ে প্রথম স্প্যানিশ পপ গানের অ্যালবাম বের করেন। সেটি ছিল ম্যাগিয়া। এরপর আরেকটি অ্যালবাম বের হয়। কিন্তু দুটোই ফ্লপ! এতে শাকিরা হতাশ হয়ে পড়েন। কিন্তু উল্টো দিকে তার মনে একটা জেদ চেপে বসে। শাকিরা ঠিক করেন, নিজের অ্যালবাম তিনি নিজেই প্রযোজনা করবেন।

১৯৯৫ সালে নিজ খরচে শাকিরা ‘পিয়েস দেসকালজোস’ বের করেন। এই পপ অ্যালবাম রীতিমত সাড়া ফেলে দেয়। অবশ্য তখনও আন্তর্জাতিক বাজার অধরাই রয়ে গেছে। সেই সুযোগ আসে আরো পরে যখন তিনি ‘দোন্দে এস্কান লোস লাদ্রোলেস’ অ্যালবামটি করেন। এটি ৭০ লাখ কপি বিক্রি হয়! তিনি গ্র্যামি অ্যাওয়ার্ডের জন্য নমিনেশন পান। এরপর রিলিজ পায় ‘লন্ড্রি সার্ভিস’। এটি ইংরেজি গানের অ্যালবাম। ব্যস, এই অ্যালবামের পর শাকিরাকে আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। এই ইংলিশ পপ অ্যালবামটি ২০০২ সালে সবচেয়ে বেশি বিক্রি হয়। শাকিরা প্রথমবারের মতো বুঝতে পারেন স্কুলে পড়ার সময় তিনি যে স্বপ্ন দেখতেন তা সত্যি হয়েছে। এবং এই সাফল্যের পেছনে রয়েছে তার বেলি ড্যান্স। ফলে শাকিরা যখন স্টেজে গান করেন তখন নাচতে ভুল করেন না।