আপডেট ১ দিন আগে , ১৪ই আষাঢ়, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ২রা শাওয়াল, ১৪৩৮ হিজরী

প্রচ্ছদ এক্সক্লুসিভ

প্রকাশিত হয়েছে : ৩:১৬:৩৯,অপরাহ্ন ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৪ | সংবাদটি ৬৮৩ বার পঠিত

প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ভরপুর পূর্ণভূমি সিলেট

আফরোজ খান : সিলেট উত্তর পূর্ব বাংলাদেশের একটি প্রধান শহর, একই সাথে এই শহরটি সিলেট বিভাগের বিভাগীয় শহর। এটি সিলেট জেলার অন্তর্গত। সিলেট সিটি কর্পোরেশনের আওতাধীন এলাকাই মূলত সিলেট শহর হিসেবে পরিচিত। সিলেট ২০০৯ সালের মার্চ মাসে একটি মেট্রোপলিটন শহরের মর্যাদা লাভ করে। সুরমা নদীর তীরবর্তী এই শহরটি বাংলাদেশের অন্যতম বৃহৎ ও গুরুত্বপুর্ণ শহর। প্রাকৃতিক সৌন্দর্য মন্ডিত এ শহরটি দেশের আধ্যাত্মিক রাজধানী হিসেবে খ্যাত। জৈন্তিয়া পাহাড়ে অপরূপ দৃশ্য, জাফলং এর মনোমুগ্ধকর সৌন্দর্য, জাফলং এখন দেশের সেরা পর্যটন স্পট। ভোলাগঞ্জের সারি সারি পাথরের স্তূপ পর্যটকদের টেনে আনে বার বার। এ শহরের বিশাল সংখ্যক লোক পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে বসবাস করে প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রা প্রেরণ করে দেশের অর্থনীতিতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে আসছে। সিলেটের পাথর, বালুর গুণগতমান দেশের মধ্যে শ্রেষ্ঠ। এখানকার প্রাকৃতিক গ্যাস সারা দেশের সিংহভাগ চাহিদা পূরণ করে থাকে। স্বাধীনতা যুদ্ধে এ জেলার ভূমিকা অপরিসীম। জেনারেল এম,এ,জি ওসমানী এ জেলারই কৃতী সন্তান। হযরত শাহজালাল (রাঃ) ও হযরত শাহ পরান (রাঃ) এর পবিত্র মাজার শরীফ এ জেলায় অবস্থিত। প্রতি বছর বিপুল সংখ্যক ধর্মপ্রাণ লোক মাজার জিয়ারতের উদ্দেশ্যে আগমন করে। শীত মৌসুমে সিলেটের হাওর-বাওর গুলো ভরে উঠে অতিথি পাখির কলরবে। সিলেটের পিয়াইন নদীর অববাহিকায় গড়ে ওঠা জাফলং এর অপূর্ব সৌন্দর্য বিমহিত করে পর্যটকদের। সারি নদীর ধার ঘেষে লালাখাল এর স্বচ্ছ জলরাশির প্রেমে পড়তে যেকোন মানুষ বাধ্য। ভোলাগঞ্জ এর পাথরকোয়ারীর অপরুপ রুপে যেকোন পর্যটক আনন্দ পেতে পারে। উপমহাদেশের প্রথম চা বাগান মালনীছাড়া পর্যটকদের কাছে আরেক বিশ্ময়। এ ছাড়াও সুরমা নদীর উপরে ক্বীন ব্রীজ না দেখলে সিলেট ভ্রমন অনেকটাই খালি থেকে যায়। ভ্রমনে আমরা কমবেশী সবাই আনন্দ পাই। তাই সিলেটের উল্লেযোগ্য কিছু দর্শনীয় স্থানের পরিচিতি নিচে তুলে ধরা হল।

দর্শনীয় স্থানের সংপ্তি বিবরণ :

১। হযরত শাহজালাল (রাঃ) ও হযরত শাহ পরাণ (রাঃ) এর মাজার শরীফ।
২। জাফলং (নদীতে ভেসে আসা পাথর  উত্তোলন, চা বাগান, খাসীয়া পলী)।
৩। জৈন্তাপূর (পুরানো রাজবাড়ী )।
৪। মাধব কুন্ড (জলঁপ্রভাত)।
৫। শ্রীমঙ্গল (চা বাগান,লাওয়াছড়া উদ্যেন,মাধব পুর লেক)।
৬। লালাখাল।
৭। তামাবিল।
৮। হাকালুকি হাওড়।
৯। ক্বীন ব্রীজ।
১০। ভোলাগঞ্জ।
১১। মহাপ্রভু শ্রী চৈত্যনো দেবের বাড়ী।
১২। হাছন রাজার মিউজিয়াম।
১৩। মালনী ছড়া চা বাগান।
১৪। ড্রিমল্যান্ড পার্ক।
১৫। আলী আমজাদের ঘড়ি।
১৬। জিতু মিয়ার বাড়ী।
১৭। মুনিপুরী রাজবাড়ি।
১৮। মুনিপুরী মিউজিয়াম।
১৯। শাহী ঈদগাহ।
২০। ওসমানী শিশু পার্ক।
২১। জাকারিয়া সিটি।
২২। পর্যটন মোটেল।
২৩। এডভের্ঞ্চার ওয়ার্ল্ড।
২৪। শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়।
২৫। শ্রীপুর পিকনিক স্পট।
২৬। ভোলাগঞ্জ।

থাকার ব্যবস্থা :

সিলেটে রয়েছে বিভিন্ন উন্নত মানের হোটেল, মোটেল, কটেজ। পর্যটকরা তাদের পছন্দের যেকোন জায়গায় অবস্থান করতে পারে।
ফাইভস্টার হোটেল রোজভিউ ছাড়াও রয়েছে হোটেল ডালাস, ফরচুন গার্ডেন, পর্যটন মোটেল সিলেট, হোটেল অনুরাগ, হোটেল সুপ্রিম, হোটেল মেট্রো ইন্টারন্যাশনাল।এছাড়া সিলেটে আপনি আপনার প্রোয়োজন ও সামর্থ অনুযায়ী যে কোন ধরনের হোটেল পাবেন কয়েকটি পরিচিত হোটেল হল হোটেল হিল টাউন,গুলশান,দরগা গেইট,সুরমা,কায়কোবাদ।

বাসঃ

আপনি সিলেটে বাসে আসতে চাইলে অনেক বাস পাবেন এর মাঝে শ্যামলি, হানিফ, সোহাগ, ইউনিক, গ্রীণ লাইন উলেখ যোগ্য। ভোর থেকে শুরু করে রাত ১২.৩০ টা পর্যন্ত এসব বাস পাবেন।বাসে আসতে সময় লাগবে অনুমানিক ৪-৪.৩০ ঘন্টা। প্রকারভেদে টিকেটের দাম পড়বে ৩০০-৯২০ টাকা।

বিমান ঃ

আপনি যদি বিমানে আসতে চান তাহলে প্রতি দিন ইউনাইটেড এয়ার ওয়েজ, জি এম জি এয়ার ও বাংলাদেশ বিমানের একাধিক ফাইট পাওয়া যায়।

পত্র পত্রিকা ঃ

দৈনিক শ্যামল সিলেট, দৈনিক সিলেটের ডাক, দৈনিক জালালাবাদ,দৈনিক সিলেট সংলাপ, দৈনিক যুগভেরী, দৈনিক সিলেট বানী, দৈনিক সিলেট সুরমা, দৈনিক কাজির বাজার সহ বেশ কিছু দৈনিক পত্রিকা সিলেট থেকে নিয়মিত প্রকাশিত হয়ে আসছে। এছাড়াও উলেখযোগ্য সংখ্যক সাপ্তাহিক, মাসিক ও সামযয়িক পত্র পত্রিকা সিলেট থেকে প্রকাশিত হয়ে আসছে।

অনলাইন পত্রিকা :

সিলেট নিউজ ওয়ার্ল্ড ডটকম, বাংলা নিউজ আপডেট ডটকম, সিলেট এক্সপ্রেস ডটকম, ডেইলি আমার সিলেট ডটকম, দৈনিক সিলেট ডটকম সহ কয়েকটি অনলাইন পত্রিকা রয়েছে।

লেখক: আফরোজ খান, সম্পাদক, অনলাইন পত্রিকা `সিলেট নিউজ ওয়ার্ল্ড ডটকম’।

Comments are closed.

দেশ-বিদেশের পাঠক

এই মূহুর্তের পাঠক

আর্কাইভ

MonTueWedThuFriSatSun
   1234
2627282930  
       
  12345
       
  12345
2728     
       
      1
3031     
   1234
12131415161718
19202122232425
       
    123
25262728293031
       
     12
31      
  12345
13141516171819
20212223242526
2728293031  
       
22232425262728
2930     
       
    123
       
  12345
27282930   
       
      1
23242526272829
3031     
      1
       
   1234
567891011
12131415161718
       
293031    
       
     12
3456789
       
  12345
2728293031  
       
2930     
       
    123
       
      1
23242526272829
30      
     12
17181920212223
31      
     12
3456789
10111213141516
17181920212223
2425262728  
       

Developed By : ICT SYLHET

Developer : Ashraful Islam

Developer Email : programmerashraful@gmail.com

Developer Phone : +8801737963893

Developer Skype : ashraful.islam625